এই পোস্টটি ৩৭৯ বার পড়া হয়েছে


বুদ্ধিজীবীদের করণীয়

তেমন কিছু বলার নেই।

তেমন কিছু বলার নেই। আসলে যা বলার রয়েছে সমাজকে নিয়ে বা সমাজ বদল নিয়ে তার সকল কিছু্ই বলে গেছেন আমাদের পূর্ববর্তী গুণীজন বুদ্ধিজীবীগন। এখন আমরা শুধু যা করতে পারি তা হচ্ছে, সেই জ্ঞানসমষ্টিকে সৃজনশীলভাবে উপস্থাপনার প্রচেষ্টা চালানো বা তাকে ধারণ করে বক্তব্য মতামত উত্থাপন করা। অথবা আরেকটি কাজ করতে পারি তা হচ্ছে, তাকে কন্ঠস্থ করে বুলি ঝাড়া। বা এটাও করা যায় যে, আত্মস্থ বা কন্ঠস্থ কোনোটাই না করে নিজের মতো করে নিজেকে বা নিজের মতামতকে উপস্থাপন করা!

যাই হোক না কেন, আমি আজ ভেবেছি ‘বুদ্ধিজীবীদের করণীয় নিয়ে আমি আজ একটি উদ্ধৃতি এখানে উত্থাপন করবো। লেখক ও শিক্ষক অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, তিনি রাষ্ট্র ও সংস্কৃতি নামে একটি বই লিখেছেন। সেই বইয়ে তিনি অনেক বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি রাশিয়ার সমাজতান্ত্রিক অক্টোবর বিপ্লবের মহানায়ক লেনিনের উদ্ধৃতি দিয়ে বুদ্ধিজীবীদের করণীয় নিয়ে খানিকটা কথা বলেছেন। সেই খানিক কথাটিই আমি আজ উদ্ধৃতি সহকারে এখানে উপস্থাপন করছি।

তিনি লিখেছেন-

অনুরূপভাবে লেনিনের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি যখন বলেন, দেশেরে ভাগ্য মেরুদন্ডহীন বুদ্ধিজীবীদের দ্বারা নির্ধারিত হয় না, দেশের ভাগ্য নির্ধারিত হয় আমজনতার দ্বারা, তখন লেনিনের উপর কিছুটা অবিচারই করা হয় বৈকি। কেননা লেনিন মেরুদন্ডবিহীন বুদ্ধিজীবীদের নাকচ করে দিয়েছেন ঠিকই, তাই বলে সমাজ বিপ্লবে বুদ্ধিজীবীদের ভূমিকাকে কখনোই খাটো করে দেখেন নি। নিজেও তিনি অত্যন্ত বড়মাপের একজন বুদ্ধিজীবী ছিলেন এবং বিপ্লবী বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গে শ্রমিক শ্রেনীর ঐক্য প্রতিষ্ঠিত হলে তবেই বিপ্লব হবে বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন।

শ্রমিকের দৃষ্টিভঙ্গি সংকীর্ণ, শ্রমিক মজুরি বোঝে, রাষ্ট্র বোঝে না। তাকে শ্রেনী সচেতন করা হলে তবেই সে বিপ্লবী হবে, নইলে নয়।

আর এই কাজটা্ই হচ্ছে বুদ্ধিজীবীর করণীয়।

স্টালিনের বিরুদ্ধে এখন নানা কথা বলা হচ্ছে, কিন্তু স্টালিনও যে বুদ্ধিজীবী হিসেবে সামান্য ছিলেন না তা তার রচনাবলী বলে দিচ্ছে।

মাও সেতুঙ যে  সাংস্কৃতিক বিপ্লবে হাত দিয়েছিলেন তারও অন্যতম লক্ষ্য ছিলো শ্রমিকের সঙ্গে বুদ্ধিজীবীর মৈত্রী গড়ে তোলা।

এখন আমরা গ্রামসীর কথা বেশ বলছি; গ্রামসী আারো এগিয়ে গিয়েছিলেন; তিনি মনে করতেন মানুষ মাতেও বুদ্ধিজীবী, কেননা প্রত্যেক মানুষেরই জীবন ও জগত সম্পর্কে একটি বিশেষ ধারণা থাকে, অন্য প্রানীর যা থাকে না।

না, বুদ্ধিজীবীদের ভূমিকা খাটো করে দেখার কোনো উপায় নেই। যদিও বুদ্ধিজীবীতে বুদ্ধিজীবীতে আকাশ পাতালের তফাৎ থাক খুবই সম্ভব।

তথ্যসূত্র: রাষ্ট্র ও সংস্কৃতি, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী; আফসার ব্রাদার্স, ১৯৯৩। পৃষ্ঠা- ১৪।

Advertisement