’ভিন্নখাতে প্রবাহিত’ ও আপন অন্তর্জালীয় মতামত

তিন তারিখের ফেব্রুয়ারি ২০১৭। খাগড়াছড়িতে প্রয়াত শ্রদ্ধেয় চন্দ্রমণি মহাস্থবিরের ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ দাহক্রিয়া অনুষ্ঠানের জন্য পূন্যার্থীদের মেলা বসেছিল মাটিরাঙ্গা ও খাগড়াছড়ির সীমান্তবর্তী চট্টগ্রাম-খাগড়ছড়ি সড়কের পাশে অবস্থিত একটি বৌদ্ধ বিহারে।  অনুষ্ঠানে সমবেত হয়েছিল আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা হাজার হাজার জনতা। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সাথে উৎসবের পরিবেশও ছিল অনুষ্ঠান প্রাঙ্গনে। সাধারণভাবে বৌদ্ধ ধর্মীয় মতে কোন উপসম্পদা প্রাপ্ত ভিক্ষু স্বাভাবিকভাবে পরিণত বয়সে মারা গেলে মৃত ব্যক্তিকে নিয়ে শোক প্রকাশ না করে তার সদগতি যে লাভ হয় তার জন্য ধর্মীয় বিধানমতে শ্রাদ্ধক্রিয়াসহ ... বিস্তারিত পড়ুন →

‘মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাপর কথোপকথন’ বইয়ে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের পর্যালোচনা

১৯৭১ সালের নয় মাসব্যাপী যে সংগ্রাম তার প্রসংগ এই দেশের ইতিহাসের জন্য দিকনির্দেশক ও পথপ্রদর্শক একটি চেতনা এবং প্রাণবিন্দু। এই নয় মাসের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা নিশ্চিতভাবেই আগামী দিনগেুলোতে কমতে থাকবে না বরং বাড়তেই থাকবে।  এবং যতই দিন যাবে ততই ইতিহাসের এই ক্ষণগুলোর পর্যালোচনা করেই আগামীর ইতিহাস রচনাকারীদের পদক্ষেপ নিতে হবে। সুতরাং এই ইতিহাসের আলোচনা ও পর্যালোচনা অনিবার্যভাবেই ভবিষ্যতে প্রাসংগিক হয়ে উঠবে ক্রমে ক্রমে আরো আরো বেশি করে। ব্যক্তিগতভাবে এই ইতিহাসকে চেনার চেষ্টা করতে আমার খুবই ভাল লাগে।  স্কুল জীবনে থাকার সময় কোত্থেকে যেন আমি পেয়েছিলাম এম আর আখতার মুকুলের ... বিস্তারিত পড়ুন →

লি চুমিঙে ভুদঅত্তুন স্যান্ডেলঅ বাড়ি হেলঅ

চিঙ নাঙে রাজা বংশঅর আমলঅত চীন দেজঅত সিনচেঙ নাঙে এগগান শঅরঅত এগগো মেজিসটেরেত এলঅ।  তার এগগো পো এলঅ। তা নাঙান এলঅ লি চুমিঙ। ত্যা হুব সাহজবলা এলঅ। ত্যা কিজু ন ডোরেদঅ।  তারার এগজন থাউইয়্যে কুদুম এলঅ। সিবে নাঙান ওয়াঙ চি লিআঙ। ওয়াঙ চি লিআঙঅর যে এগগান বড় ঘর এলঅ সিওত অমহদঅ বেচ ভুদ থেদাক ভিলি মানজে কোআকোহি গত্তাক। লি চুমিঙ-এ এগবার সে বড় ঘরঅত বেড়েবাত্তেই গেলঅ।  তারে দিঘিনেই ওয়াঙ-এ ‍হুব হুজি অহলঅ। ত্যা তারে কঅলঅ-’আমা এ ঘরঅত তুই বেড়েবাত্তেই ইচ্চোচ শুনিনেই হুজি উইওঙ। ইদু তুই গাই গাই ন থেচ। ত সমারে তরে রেদোত সাঙেত দিবাত্তেই এগজন মানুজ পাধেই দিম। ‘ হালিক লি চুমিঙে তারে কলঅ, না না, মত্তুন ... বিস্তারিত পড়ুন →

’যখন বঙ্গভবনে ছিলাম’- আলোকিত হবার একটি বই

বইটি তেমন বড় নয়, মাত্র একশ’ দুই পৃষ্ঠার। আর ঘটনা যে তেমন আছে তাও নয়। মাত্র কয়েকটি ঘটনার সমাহার। তবে এইসব ঘটনা জাতীয় জীবনের ইতিহাসের সাথে সম্পৃক্ত। দেশের ইতিহাসের অংশ এইসব ঘটনা। এই সকল ঘটনাবলী যা ছিল অপ্রকাশিত সাধারণের মাঝে সেগুলো আজ লেখকের লেখায় প্রকাশিত হয়ে ইতিহাসের অংশ হয়ে গেছে। ব্রিগেডিয়ার শামসুদ্দীন আহমেদ, একজন সেনা কর্মকর্তা। তিনি একসময় বেশ কিছুদিনের জন্য বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির ভবন বঙ্গভবন-এ চাকরিসূত্রে অবস্থান করেছিলেন। সেখানে তিনি যা দেখেছেন, যেভাবে ঘটনাবলীকে বিশ্লেষণ করেছেন তা-ই আমরা তাঁর লেখায় দেখতে পাই। বইটির মুখবন্ধ লিখেছেন প্রখ্যাত লেখক ও শিক্ষক ... বিস্তারিত পড়ুন →

ঢাকায় তিন সংগঠনের সমাবেশে প্রদত্ত বক্তব্য

১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন সংগঠন ঢাকায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলা পাদদেশে। সেখানে তিন সংগঠনের(পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম) নেতৃবৃন্দ ছাড়াও জাতীয় ছাত্র-নারী ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। উক্ত সমাবেশে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)এর প্রতিনিধি হিসেবে আমি বক্তব্য প্রদান করি। বহুদিন পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তব্য দিলাম। যখন ছাত্র সংগঠনে ছিলাম তখন মাঝে ... বিস্তারিত পড়ুন →

বিশ্বনাগরিক ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস

ফ্রিডরিখ এঙ্গেলস। জার্মান লেখক, দার্শনিক, রাজনৈতিক বিষয়ে তাত্ত্বিক লেখক।সর্বোপরি তিনি এবং কার্ল মার্কস ছিলেন কীর্তিমান দুইজন বন্ধু, যাদের হাত ধরে জন্ম নিয়েছে সর্বহারা তথা দুনিয়ার তাবৎ শ্রমিক শ্রেনীর মুক্তির/সংগ্রামের দর্শন দ্বন্দ্বমূলক ঐতিহাসিক বস্তুবাদ বা মার্কসবাদ। এঙ্গেলসের জন্ম নভেম্বর, ১৮২০ প্রুশিয়া’র রাইন প্রদেশের বারমেন অঞ্চলে। প্রুশিয়ার এই এলাকা বর্তমানে জার্মানীর অধীনে ভুপারতেল নামে পরিচিত।এঙ্গেলসের মৃত্যু হয় ৭৪ বছর বয়সে ১৮৯৫ সালের ০৫ আগস্ট লন্ডনে। তার পিতার নাম এঙ্গেলস সিনিয়র।ছিলেন বারমেনের টেক্সটাইল শিল্পকারখানার একজন মালিক। বারমেনে বা ... বিস্তারিত পড়ুন →

লেখকদের উপর হামলা ও হত্যা বিষয়ে ফেসবুকে লিখিত ব্যক্তিগত মতসমূহ

৩১ অক্টোবর,২০১৫ ঢাকায় লেখক-প্রকাশকদের উপর হামলায় তিনজন মারাত্মকভাবে আহত হয় ও ফয়সার আরেফিন দীপন মারা যায়। এ বিষয়ে আমি ফেসবুকে যে মন্তব্য করি তা নিচে তুলে ধরলাম। মন্তব্য-১ তারিখ: ৩১ অক্টোবর, ২০১৫ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হকের ছেলে জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আরেফিন দীপন খুন হয়েছেন। তার আগে লালমাটিয়া/মোহাম্মদপুরে শুদ্ধস্বর প্রকাশনার স্বত্বাধিকারী আহমেদুর রশিদ টুটুলসহ লেখক রণদীপম বসু ও কবি তারেক রহিমকে গুলি করে ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। তাদের আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। একইদিনে পরপর ... বিস্তারিত পড়ুন →

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা বিষয়ে কিছু ব্যক্তিগত প্রস্তাবনা

[জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সরকারী কর্তৃপক্ষ জনগণের কাছ থেকে উন্মুক্তভাবে মতামত আহ্বান করে। গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়া পড়ার পরে আমার মনে হয়েছে এ বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা বা ভিন্নমত লিখে মেইলে বা ইমেইলে পাঠানো যায়। সে কথা ভেবে নিচের মতামত ইমেইলের মাধ্যমে প্রেরণ করেছিলাম। আজ(১৫ অক্টোবর, ২০১৫) তা ব্যক্তিগত ব্লগে প্রকাশ করলাম। ] তারিখ: ৩০ আগস্ট, ২০১৫ ০১. (ক) জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালায় “অনলাইন গণমাধ্যম’এর সংঞ্জা বিষয়ে ভিন্নমত রয়েছে। বলা হয়েছে, গণমাধ্যম বলতে …. সম্প্রচারকারী ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে বোঝাবে। দ্বিতীয় অধ্যায়ে বলা হচ্ছে- সকল অনলাইন ... বিস্তারিত পড়ুন →

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা বিষয়ে কিছু ব্যক্তিগত প্রস্তাবনা

[জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সরকারী কর্তৃপক্ষ জনগণের কাছ থেকে উন্মুক্তভাবে মতামত আহ্বান করে। গণমাধ্যম নীতিমালার খসড়া পড়ার পরে আমার মনে হয়েছে এ বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা বা ভিন্নমত লিখে মেইলে বা ইমেইলে পাঠানো যায়। সে কথা ভেবে নিচের মতামত ইমেইলের মাধ্যমে প্রেরণ করেছিলাম। আজ(১৫ অক্টোবর, ২০১৫) তা ব্যক্তিগত ব্লগে প্রকাশ করলাম। ] তারিখ: ৩০ আগস্ট, ২০১৫ ০১. (ক) জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালায় “অনলাইন গণমাধ্যম’এর সংঞ্জা বিষয়ে ভিন্নমত রয়েছে। বলা হয়েছে, গণমাধ্যম বলতে …. সম্প্রচারকারী ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে বোঝাবে। দ্বিতীয় অধ্যায়ে বলা হচ্ছে- সকল অনলাইন ... বিস্তারিত পড়ুন →

সংঘের শ্রীবৃদ্ধি ঘটে, সংহতি সাধিত হয় কায়, মন, বাক্যের সংহতির দ্বারা

একদা একসময় সিদ্ধার্থ গৌতম কোশাম্বির ঘোশিতারাম বিহারে অবস্থান করছিলেন। তিনি জানতে পারলেন সেখানে অবস্থানরত ভিক্ষুগণ নিজেদের মধ্যে বিবাদ করছেন, পরস্পরের ভুল ধরিয়ে দিচ্ছেন। একে অপরকে নানা কটুবাক্যের দ্বারা আঘাত করছেন। কলহ বিবাদ যেন বিহারকে নিরানন্দ করে দিলো! সিদ্ধার্থ গৌতম ভিক্ষু শ্রামনদের মধ্যে এই বিবাদের কথা জানতে পারলেন। তিনি সবাইকে ডাকলেন। তিনি তাদের বললেন, তোমরা যে বিবাদ করছো, ঝগড়া করছো তাতে কি তোমাদের কোনো লাভ হচ্ছে? কেন তোমরা বিবাদ করছো? তোমাদের বলছি- ১। তোমরা যদি কায়, মন, বাক্যে তোমার সতীর্থ বন্ধু, সহসাথীর সাথে মিত্রতার আচরণ করো, তাদের কল্যান কামনা করো তবে কি ... বিস্তারিত পড়ুন →