৯ সেপ্টেম্বর চীন দেঝ’র মহান নেতা মাও সেতুঙ’র মৃত্যু দিবস-রাঙা রঙ’ জু কমরেড মাও সেতুঙ

    মাও সেতুঙ    কপি গরা উইয়ে: মোনোত্তুগব্লগ রোজা উইএ-২০০৮-৯ সাল   মাও সেতুঙ- চীন নাঙে দেঝ’র মহান নেতা। চীন দেঝ’ নাঙ য্যা শুন্যে ত্যা মাও সেতুঙ নাঙ শুন্যে। চীন দেচ্চান যে ইদ্দুর উন্নতি উইয়ে, পিত্থিমিত যে চীন’র এত সম্মান মযযাদা তা পিজেন্দি মাও সেতুঙ’ ধুক্কেন মহান নেতার অবদান আগে। মাও সেতুঙ ১৮৯৩ সাল’র ডিসেম্বর মাহজ’র এগ্গো দিন’ত চীন’র হোনান প্রদেঝ’র শাঙতান জেলার শাউশাঙচুঙ নাঙে এগ্গান আদাম’ত জনম লুইয়ে। তা বাপপো এল’দে হুব গুরিপ। নিজ’ পরিশ্রমে ত্যা এগ্গান সময় থাউয়ে ন অহলেও চলেদে পারা তেঙা কামেইয়ে আআ ভুই বানেই পাজ্জে। তারা তেঙা-পোইঝে বলা উইওন। তারপরেও ... বিস্তারিত পড়ুন →

কার্ল মার্কসের জীবন ও দর্শন নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে ব্যক্তিগত মতামত

কার্ল মার্ক্স কে নিয়ে শুধু তার জন্মমৃত্যু দিবসকে নিয়ে আলোচনা করে যদি আমরা ক্ষান্ত থাকি তবে আসলে আমরা তাকেই অপমানিত করছি! আর তার জন্মদিনে যদি আমরা শুধু তার কীর্তিকলাপ নিয়েও আলোচনা করি তবে তবুও আমরা তাকে বা তার দর্শনকে অপমানিত করছি! তাহলে আমরা তাকে নিয়ে বা এই ধরণের আজন্ম বিপ্লবীদের নিয়ে আলোচনা করতে গেলে কী নিয়ে আলোচনা করব? আমাদের কার্ল মার্ক্সকে নিয়ে আলোচনা করতে হবে বিপ্লব বা সংগ্রামের লাইনের সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি আয়ত্ত করার জন্য। শুধুমাত্র তার জন্মমৃত্যুর তারিখ বা কোনদিন তিনি কোন বই লিখেছেন বা কী কাজ করেছেন বা কী ভালো ভালো কথা বলেছেন কী ভালো ভালো কাজ করেছেন তার  আদ্যপান্ত ... বিস্তারিত পড়ুন →

‘দৃষ্টির সীমানায় কবি স্যার শফিকুল ইসলাম’

‘উদভ্রান্ত যুগের শুদ্ধতম কবি শফিকুল ইসলাম’ –নিজাম ইসলাম। তারুণ্য ও দ্রোহের প্রতীক কবি শফিকুল ইসলাম। তার কাব্যচর্চার বিষয়বস্তু প্রেম ও দ্রোহ। কবিতা রচনার পাশাপাশি তিনি অনেক গান ও রচনা করেছেন। তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত গীতিকার। তিনি ১০-ই ফেব্রুয়ারী সিলেট জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকার প্রাক্তন মেট্রোপলিটান ম্যাজিষ্ট্রেট ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাবেক এডিসি কবি শফিকুল ইসলাম বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারের উপসচিব। প্রশাসনের ব্যস্ততম ও দায়িত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত থেকে ও তার এই নিরন্তর কাব্য সাধনা আমাদের যুগপৎ অনুপ্রাণিত ও বিস্মিত করে। কবি শফিকুল ইসলাম ... বিস্তারিত পড়ুন →

ইতালীর মার্ক্সবাদী তাত্ত্বিক আন্তনিও গ্রামশি সম্পর্কে

আন্তনিও গ্রামশি। জন্ম ১৮৯১ সালের ২২ জানুয়ারি। জন্মস্থান ইতালীর সার্দানিয়া দ্বীপের গির্জা শহর আলেসে। পিতার নাম ফ্রান্সেসকো গ্রামশি। মাতা জিওসেপ্পিনা মারসিয়াস। পিতা একজন নিন্মপদস্থ কর্মচারী ছিলেন। গ্রামশি ছিলেন পিতা মাতার সাত সন্তানের চতুর্থতম। গ্রামশির যখন চার বছর বয়স তখন এক দুর্ঘটনায় তার মেরুদন্ড কুঁজো হয়ে যায়। তবে অন্য তথ্যমতে তার টিউবারকুলোসিস রোগের কারণে পিঠ কুঁজো হয়ে যায়।  তার সারাজীবন কুঁজো হয়েই কাটাতে হয়। এজন্য তার উচ্চতা ৫ ফুটের কম ছিলো। গ্রামশির যখন ৮ বছর বয়স তখন তার পিতা ফ্রান্সেসকো গ্রামশি অর্থ তছরূপের অভিযোগে অভিযুক্ত হন। এবং তাকে কারাভোগ করতে ... বিস্তারিত পড়ুন →

ভো নগুয়েন গিয়াপ: ভিয়েতনাম বিপ্লবী সংগ্রামের ইতিহাসে এক গণনায়কের নাম!

জেনারেল ভো নগুয়েন গিয়াপ মারা গেলেন ১০২ বছর বয়সে। গত শুক্রবার ০৪ অক্টোবর, ২০১৩ ভিয়েতনামের হ্যানয়ের এক সামরিক হাসপাতালে তিনি মারা যান। তাকে নিয়ে তার জীবন নিয়ে আমার সংক্ষিপ্ত একটি লেখা। তাকে বিবেচনা করা হয় ইতিহাসের অন্যতম একজন সমর বিষয়ক কলাকুশলবিদ হিসেবে।  ফ্রান্স ও আমেরিকা সাম্রাজ্যবাদকে ভিয়েতনাম থেকে হটিয়ে দিতে তিনি সামরিকভাবে ভিয়েতনাম বিজয়ের ক্ষেত্রে স্থপতির মতো ভূমিকা রেখেছিলেন। ভিয়েতনামে হো চি মিনের পর দ্বিতীয় নেতা হিসেবে তিনি বিবেচিত হন। তিনি আক্ষরিকভাবে বা আনুষ্ঠানিকভাবে কোন সামরিক প্রশিক্ষণ নেননি। কিন্তু ভিয়েতনামের সশস্ত্র বিপ্লবী গেরিলা যুদ্ধের ... বিস্তারিত পড়ুন →

শহীদ রূপক চাকমাকে স্মরণ করছি, তাকে জানাই রেড স্যালুট!

(এক) [ শহীদ রূপক চাকমা। আমার কাছে এক আবেগের নাম, সম্মানের সাথে স্মরণ করার জন্য একটি নাম। ছোটোকালে তাকে দেখেছি। কিছুদিন আমাদের পরিবার নারাঙহিয়া অনন্ত মাস্টার পাড়ায় থাকার সময় তাঁর সাথে পরিচয়। একসাথে  ‘নাধেঙ(লাঠিম)’ খেলেছি। তিনি আমাদের সিনিয়র। পরে সেখান থেকে চলে গেলে তাঁকে অনেকদিন দেখিনি। তারপর ভার্সিটিতে ভর্তি হবার পর তাঁর সাথে দেখা। তখন তো তিনি সংগঠনের একনিষ্ঠ কর্মী এবং নেতা। পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি হয়েছিলেন। যখন বক্তব্য রাখতেন তখন আত্মবিশ্বাস নিয়ে বক্তব্য রাখতেন। যুক্তি তুলে ধরতেন ধারালোভাবে। ২০০১ সালের ২০ মে। পিসিপির ১ যুগপূর্তি অনুষ্ঠান ঢাকায় ... বিস্তারিত পড়ুন →

বুদ্ধের অনুচর ভিক্ষু আনন্দ: আজীবন এক শিক্ষার্থী, অনুসরণীয় এক ব্যক্তিত্ব

    বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তক গৌতম বুদ্ধ। ৪৫ বছর ধরে তিনি ধর্ম প্রচার করেছিলেন। ৮০ বছর বেঁচে ছিলেন। তাঁর বয়স যখন ৫৫ তখন তিনি অনুভব করেন, এই বয়সে তাঁকে পরিচর্যা বা তাঁর ভালোমন্দ দেখাশোনা করার জন্য একজন সহচর প্রয়োজন। অনেক বিচার বিবেচনা করে তিনি ভদন্ত আনন্দকে তাঁর সহচর করেন।   সহচর বা অনুচর বা পরিচর্যাকারী হবার আগে আনন্দ গৌতম বুদ্ধকে বলেন যে আটটি প্রার্থনা পূরণ করলেই তবে তিনি গৌতম বুদ্ধের অনুচর হতে রাজি থাকবেন।     সেই ৮টি প্রার্থনা হচ্ছে-   .         বুদ্ধ আনন্দকে সুন্দর কাপড়চোপড় প্রদান করবেন না। এবং বুদ্ধ যে কাপড় পরেন তা নতুন বা পুরাতন হোক তা তিনি ব্যবহার করবেন না। .         ... বিস্তারিত পড়ুন →

কাজের নেতা তাজউদ্দীন: জন্মদিনে তোমায় সশ্রদ্ধ সালাম

আজ ২৩ জুলাই, ২০১৩। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নেতৃত্বদানকারী তাজউদ্দীন আহমেদের আজ ৮৮ তম জন্মদিন। ১৯২৫ সালের ২৩ জুলাই গাজীপুর জেলার কাপাসিয়ার দরদরিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন ১০ ভাইবোনের মধ্যে ৪র্থ। ছাত্রজীবনে তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সাথে জড়িত ছিলেন। ১৯৬৬ সালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপরে তিনি ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে দেশের নেতৃত্ব প্রদান করেন। তাঁর সারাজীবনের রাজনৈতিক কার্যক্রম বর্ণনা করলে এক অর্থে বলা যায়, তিনি নামে নেতা ছিলেন না, ছিলেন কাজে নেতা। তার ... বিস্তারিত পড়ুন →