বাঙ চোঙ-হোনঃ কোরিয়ায় শিশুদের আত্মমর্যাদা শেখাতে যিনি আন্দোলন করেছিলেন

কোরিয়া শিশু দিবস পালন করা হয় প্রতি বছরের মে মাসের ৫ তারিখ। এই শিশুদিবস পালনের ইতিহাসে রয়েছে শিশুপ্রিয় এক ব্যক্তির নাম। তার নাম বাঙ চোঙ-হোন ইংরেজিতে Bang Jeong-hwan। কোরিয়ার এই শিশুদিবস পালনের পেছনে রয়েছে লড়াইয়ের ইতিহাস, অধিকার পাবার জন্য হাঁসফাঁসের ইতিহাস। কোরিয়া জাপানের কাছ থেকে পদানত হয় ১৯১০ সালে।  তখন কোরিয়ায় দুর্যোগের কাল যাচ্ছে। কোরিয়ার স্বাধীনতাকামীরা চেষ্টা করছে কোরিয়াকে জাপানের নাগপাশ থেকে বেরিয়ে আনতে। বাঙ চোঙ-হোনের বয়স তখন ১১ অথবা ১২ বছর। ১৮৯৯ সালে তিনি জন্মেছিলেন। তাদের পরিবার চার প্রজন্ম ধরে সুখে শান্তিতে একই স্থানে বসবাস করছিলো। তারা ছিলেন বনেদি ব্যবসায়ী। ... বিস্তারিত পড়ুন →

২৭টি আনারস চারা রোপন করে দিয়ে শুরু হলো উৎপাদনে উদ্বুদ্ধ করার কাজ!

মাত্র ২৭টি আনারস চারা! এক ব্যক্তির অনাদরে রাখা আনারস বাগান থেকে চারা তুলে নিলাম আমরা! তারপর সেগুলো একটি ঝলায় ভরে হাতে একটি তাগল/দা নিয়ে রওনা দিলাম। কিছুক্ষণ হেটে গিয়ে গঙ্গারাম নদীর ধারে আসলাম। সেখানে পাড়ে রাখা নৌকা দিয়ে নদী পার হলাম। নদীর পাশেই রামঅছড়া গ্রামের সীমানা শুরু।  পাহাড়ি পথ বেয়ে গেলাম দিলদাজ্জে বাপ-এর বাড়িতে। সেখানে তার পরিবারসহ সবাই তখন ছিলো। তারা দুপুরের বিশ্রাম নিচ্ছিলো। তাদের বললাম- আমরা এসেছি আপনার বসতভিটার কাছে চারটি আনারস চারা লাগিয়ে দিতে। তাকে বললাম- আপনার বসতভিটার চারপাশে কেন এত ঝাড়? অনুরোধ করলাম কয়েকদিনের মধ্যে যেন তিনি তার ঝাড় পরিষ্কার করেন। ... বিস্তারিত পড়ুন →

সাজেকবাসী না খেয়ে নেই, উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য মূল্য পেয়ে তারা সন্তুষ্ট হতে চায়

কয়েকদিন আগে দৈনিক প্রথম আলো পত্রিকায় হাড় জিরজিরে বেশ কয়েকজনের ছবিসহ একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল। প্রতিবেদনের বিষয়বস্তু ছিলো- রাঙামাটির দুর্গম এলাকা সাজেকের লোকজন খাদ্যের অভাবে ভুগছে। এ নিয়ে আরো বেশ কয়েকটি প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয় বিভিন্ন মিডিয়ায়। খবরটি স্থানীয় সরকারী প্রশাসনকে নাড়া দিলে আমি এ বিষয়ে কৌতুহলী হয়ে পড়ি। নানাভাবে এ নিয়ে তথ্য নিতে চেষ্টা করি। কিন্তু সময়ের অভাবে এ নিয়ে লেখালেখি করা হয়ে উঠেনি। এখনো বিস্তারিত লেখার মতো সময় হয়তো পাওয়া সম্ভব নয়! তারপরও পয়েন্ট আকারে এ নিয়ে লেখার চেষ্টা করছি।                   সাজেকবাসী উৎপাদিত ফসলের ন্যয্য মূল্য ... বিস্তারিত পড়ুন →