বোগাস পার্টি বোগাস সংগ্রাম- উৎপল খীসা

একথা আর অবিদিত নয় যে, পাহাড়ের রাজনৈতিক দলগুলো ঘোলাজলে হাবুডুবু খাচ্ছে সে এক যুগেরও অধিক সময় ধরে। রাজনৈতিক নেতারা দেখছেন না যথার্থ মুক্তির পথ, আলো। তাই তারা ক্ষমতাহীন, জনগণ ক্ষমতাহীন। পাহাড়ের সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক সমুদয় ক্ষমতা ভোগ, ব্যবহার করছে দুবৃত্তরা। অন্যরা আজ তাদের হাতের পুতুল মাত্র! রাজনৈতিক নেতা যখন শক্তিশালী হন তখন তিনি চতুর্পাশের সমস্ত আধারকে বিদুরিত করেন সহযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে। আর নেতা যদি বিপরীত অবস্থানে থাকেন তো ধীরে ধীরে সমস্ত আলোকে গ্রাস করে ফেলে আধার। অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে যায় সমুদয় আলো। যে অবস্থায় স্বাভাবিক জীবন হয়ে পড়ে রুদ্ধ। একটি রাজনৈতিক ... বিস্তারিত পড়ুন →

দেখিয়া শুনিয়া খেপিয়াঃ ডাব্বোয়া-জুয়া চলবে না!

দীঘিনালায় ডাব্বোয়া-জুয়ার আসর বসানো চলবে না, চলবে না! দেখিয়া শুনিয়া খেপিয়া গিয়াছি বলেই মনেহয়! বেশ কয়েকদিন আগে খাগড়াছড়ি সদরের কমলছড়ি গ্রামে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠার শত বার্ষিকী অনুষ্ঠানের দিন জুয়া-ডাব্বোয়া খেলার আসর বসানোকে কেন্দ্র করে পুলিশ-ডাব্বোয়া খেলুড়েদের মধ্যে সংঘাতকান্ড হয়। আমরা নানা ভাবেই জানতে পারছি, সমাজের মধ্যে যুব-যুবা অংশ নানা ভাবে উচ্ছন্নে যাবার সাথে সাথে এলাকায় এলাকায় ডাব্বোয়া-জুয়ার প্রকোপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। আজ ২৫ এপ্রিল সকালে শুনলাম খাগড়াছড়ির দীঘিনালা সদরে লটারী ড্র-এর আসর বসানোর হবে। এই আসরের নামে একটি বিকালে ডাব্বোয়া-জুয়ার আসর বসানো ... বিস্তারিত পড়ুন →

হেগা চাঙমা’র ফেসবুক স্ট্যাটাস- না হয় একটু আপোষ…

বয়স বেড়েছে, বেড়েছে খরচ। খরচের তুলনায় অর্থের যোগান একেবারেই সীমিত। প্রতি মাসে দেনার খাতায় বিশাল অংক যোগ হওয়ায় পৌনপুনিকভাবে ঘাটতি থেকেই যাচ্ছে। কোনভাবেই অতিক্রম করা যাচ্ছে না এই সংকট। এমতাবস্থায়, এ রাগী মানুষটির একটা চাকরি খুবই প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। সে এটাও খুব ভালোভাবে জেনে গেছে যে চাকরি করতে গেলে এমন রাগী স্বভাব বদলাতে হতে। তাই, বিভিন্ন সংকটের মধ্যে আপোষীপনা বাড়ছে জ্যামিতিক। আর তার ভাবনা জুড়ে আছে অন্য এক জগত, যে জগতের নাম আত্মমর্যাদার লড়াই, স্বাধীনভাবে টিকে থাকার যুদ্ধ। বুঝতে পারছি, আমার ভাবনার জগতকে দারুন প্রভাবিত করছে বাস্তবতা। মনন জগতে বিচিত্রসব দ্বন্দ্ব খেলা ... বিস্তারিত পড়ুন →

মরণের প্রকারভেদ- সরোজ কান্তি চাকমা

সরোজ কান্তি চাকমা বাত্ত্যা বৈদ্ধিয়্যা গুণে গুণে পঁচাশি বৎসর (তাহার প্রায়ই বলা তথ্য মতে) বাঁচিয়া অদ্য মরিল। মানুষের রচিত শাস্ত্রবিধি মতে এতক্ষণে যমালয়ে তাঁহার পাপ-পূণ্যের পাকা হিসাব কষা শেষ হইয়াছে। স্বর্গের সুশ্রী দেবতারা কিংবা নরকের কুশ্রী অত্যাচারী শুকরমুখো জীবগণ তাহার পুরষ্কার কিংবা শাস্তির কার্যকলাপ শুরু করিয়া দিয়াছেন। অবশ্য গ্রামের বয়ো-বিজ্ঞজনের ঐক্যমতে, বাত্ত্যার স্বর্গপ্রাপ্তি নি:সন্দেহ। কারণ, তাহার পঁচাশি বৎসর জীবন কালে সে কাহারও মনোকষ্টের কারণ হননি; ক্ষেত্রবিশেষে যদিও চাপাবাজিতে গুরু ছিলন। শ্রুত কথা-যৌবন কালে কোন এক দ্রোণগুরুর আতিশষ্যে মহাসমারোহে ... বিস্তারিত পড়ুন →

চাঙমা হোবিতে: রিবেঙ পজা বিষ- বাসু চাঙমা

পুজি যাদে যাদে হত্তমান পুজি যেয়োং যুনি চেবার চাজ- ফেসবুগোর পাদা হুলি চা দেগিবে হেনান্যা আগে আমা সমাজ! নলাগিবো তর সমাজর মরঙত লামিবার পোরবুয়া ও নপুরিবো- তুই রিনি চেলেই বুঝিবে, মন মরঙত লুগি আগে আঙোচ্চে আন্ধার। রুমে রুমে ছিদি যার রিবেঙ পজা বিষ আক্কল পুজি-গুলি যার- আন্দলর চেঙেরা দিগিলেই জারহাদা উদিবো, ভাবি চা! হধক তলে লামিবোঙ আর! তলে লামদে লামদে হধক তলে লামিলে মা-বোনদোই হারা হো পারে? মরে হ! হধক পুজি গেলে হধালোই নিজো ভোন ঝাবে পারে! ইংসে-রিজসোর চিন্দেবাজ গোদা হিয়েনত মানেয়োর বাজ নেই আর- মরা হিয়েলোই টানাটানি,রেং হারানা! ভেই! নক্কুনি ফারক নেই এমানর সং অবার। মন হাজর অধে অধে হধক হাজর অলে ভেই ... বিস্তারিত পড়ুন →

লি কুয়ান ইয়ু- দায়বোধ সম্পন্ন, কর্তৃত্ববাদী স্বপ্নছোঁয়া একজন

 সিঙ্গাপুর নামে এক ছোট দ্বীপখন্ড বেশ কয়েক দশক আগেও এই দ্বীপখন্ড ছিলো জেলেদের মাছ ধরার এক জনপদ। ১৮১৯ সালে ব্রিটিশরাজ এই অঞ্চলকে ব্যবসায়িক কলোনী হিসেবে ব্যবহারের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। আয়তন ৭১৬ বর্গকিলোমিটারের(২৭৭ বর্গমাইল) কিছু বেশি। জনসংখ্যা বর্তমানে প্রায় ৫৫ লাখের মতো।জনপদে বসবাস করছেন মালয়ী-তামিল-চীনা এই তিন জাতির জনগণ। তবে প্রাপ্ত এক ডাটায় দেখা যায় সিঙ্গাপুরের মোট শ্রমশক্তির ৪৪ ভাগই বর্তমানে অন্য দেশ বা জাতি থেকে আগত। ১৯৪২ সালের দিকে জাপান এই অঞ্চল ব্রিটিশরাজ থেকে দখলে নেয়। ১৯৪৫ সালে জাপানের কাছ থেকে আবার তা ব্রিটিশদের হাতে চলে আসে। ১৯৫৫ সালে সিঙ্গাপুরকে ... বিস্তারিত পড়ুন →

ছবি- সমাজ গঠনে সাহিত্যের ভূমিকা নিয়ে উদ্ধৃতি

সমাজ গঠনের জন্য দরকার শিল্প সাহিত্য ও সংস্কৃতির আন্দোলন-এই আন্দোলনে শরীক হোন-  Enlightened Hill Literature Group সাহিত্য শুধু শো’কেসে রাখার জন্য অলংকার নয়, সাহিত্য উন্নত মূল্যবোধ গঠনেরও হাতিয়ার- Enlightened Hill Literature Group বিস্তারিত পড়ুন →

তার আঝা মুরি গেলঅ

সাজেক চাগালার আচতো নম্বর আদাম বা অন্য আদামঅর এগ্গো গাবুজ্জে মানুচ। তা নাঙান বাদি বা বিজিদি বা চিত্তি বা চিমোর। ত্যা বুউত আঝা লোইনেই শানদিবাইনীত জিএ। বুউত আঝা লোইনেই ত্যা আহত্যার ধুজ্জেগোই। ত্যা অধিকার পেবার চিএ বা শানদি পেবার চিএ।  হালিক ১৯৯৭ সালঅর ডিসেমবঅর মাহজঅত জ্যাক্কেনে চুক্তি উইয়ে স্যাক্কেনে ত্যা আরঅ ১৯৪৭ জনঅ সমারে স্যালেনদার/সারেন্ডার গুজ্জে বা গুরি পিএ। স্যালেনদার গুরিবার পরে সরকাজ্যাত্তুন ত্যা ৫০ আহজার তেঙা পেইনেই ঘরঅত এজের। স্যাক্কেনে ৫০ আহজার তেঙা মানে ভালুক্কুন তেঙা। সে তেঙা থানা মানে থাউেইএ অহনা। ত্যা ঘরঅ মুক্কে লঅত দ্যে। ত্যা ঘরঅ কধা চিদে গরের ... বিস্তারিত পড়ুন →

বাঙ চোঙ-হোনঃ কোরিয়ায় শিশুদের আত্মমর্যাদা শেখাতে যিনি আন্দোলন করেছিলেন

কোরিয়া শিশু দিবস পালন করা হয় প্রতি বছরের মে মাসের ৫ তারিখ। এই শিশুদিবস পালনের ইতিহাসে রয়েছে শিশুপ্রিয় এক ব্যক্তির নাম। তার নাম বাঙ চোঙ-হোন ইংরেজিতে Bang Jeong-hwan। কোরিয়ার এই শিশুদিবস পালনের পেছনে রয়েছে লড়াইয়ের ইতিহাস, অধিকার পাবার জন্য হাঁসফাঁসের ইতিহাস। কোরিয়া জাপানের কাছ থেকে পদানত হয় ১৯১০ সালে।  তখন কোরিয়ায় দুর্যোগের কাল যাচ্ছে। কোরিয়ার স্বাধীনতাকামীরা চেষ্টা করছে কোরিয়াকে জাপানের নাগপাশ থেকে বেরিয়ে আনতে। বাঙ চোঙ-হোনের বয়স তখন ১১ অথবা ১২ বছর। ১৮৯৯ সালে তিনি জন্মেছিলেন। তাদের পরিবার চার প্রজন্ম ধরে সুখে শান্তিতে একই স্থানে বসবাস করছিলো। তারা ছিলেন বনেদি ব্যবসায়ী। ... বিস্তারিত পড়ুন →

পুরাতন লেখাঃ ভিলেজ পলিটিক্সে অনভিজ্ঞ একজন

তারিখ: ১০ আগস্ট, ২০১৪ রাত ১০.০০টা আমি উপভোগ করি আমার দায়িত্ব ও কাজকে। আমি চেষ্টা করি দায়িত্ব ও কাজকে সঠিকভাবে করতে। মনেপ্রাণে বাস্তব কাজের সাথে সম্পৃক্ত থেকে নিজের দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন করতে চেষ্টা করি। এর্বং এই দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ কোনো ব্যক্তিক স্বার্থ চেতনাকে প্রশ্রয় না দিয়েই তা করার চেষ্টা করি। তবে এটা বলা যায় যে, কাজের মধ্যে ভুলচুক থাকা স্বাভাবিক। তবে চেতনে বা চেয়েশুনে ভুল করা থেকে বিরত থাকাতেই সবসময় চিন্তা ও দৃষ্টি থাকে এটা বলা যায়। যে কাজ করছি… যে কাজ করছি তা জনগণের সাথে, পার্বত্য চট্টগ্রমের জনগণের সাথে সম্পৃক্ত। বাস্তব কাজে, বাস্তবে জনগণের সাথে আছি, এই আনন্দবোধ ... বিস্তারিত পড়ুন →