‘মুক্তিযুদ্ধের পূর্বাপর কথোপকথন’ বইয়ে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা সংগ্রামের পর্যালোচনা

১৯৭১ সালের নয় মাসব্যাপী যে সংগ্রাম তার প্রসংগ এই দেশের ইতিহাসের জন্য দিকনির্দেশক ও পথপ্রদর্শক একটি চেতনা এবং প্রাণবিন্দু। এই নয় মাসের ইতিহাস নিয়ে আলোচনা নিশ্চিতভাবেই আগামী দিনগেুলোতে কমতে থাকবে না বরং বাড়তেই থাকবে।  এবং যতই দিন যাবে ততই ইতিহাসের এই ক্ষণগুলোর পর্যালোচনা করেই আগামীর ইতিহাস রচনাকারীদের পদক্ষেপ নিতে হবে। সুতরাং এই ইতিহাসের আলোচনা ও পর্যালোচনা অনিবার্যভাবেই ভবিষ্যতে প্রাসংগিক হয়ে উঠবে ক্রমে ক্রমে আরো আরো বেশি করে। ব্যক্তিগতভাবে এই ইতিহাসকে চেনার চেষ্টা করতে আমার খুবই ভাল লাগে।  স্কুল জীবনে থাকার সময় কোত্থেকে যেন আমি পেয়েছিলাম এম আর আখতার মুকুলের ... বিস্তারিত পড়ুন →

ঢাকায় তিন সংগঠনের সমাবেশে প্রদত্ত বক্তব্য

১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন সংগঠন ঢাকায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলা পাদদেশে। সেখানে তিন সংগঠনের(পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, হিল উইমেন্স ফেডারেশন, গণতান্ত্রিক যুব ফোরাম) নেতৃবৃন্দ ছাড়াও জাতীয় ছাত্র-নারী ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। উক্ত সমাবেশে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)এর প্রতিনিধি হিসেবে আমি বক্তব্য প্রদান করি। বহুদিন পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বক্তব্য দিলাম। যখন ছাত্র সংগঠনে ছিলাম তখন মাঝে ... বিস্তারিত পড়ুন →

লেখকদের উপর হামলা ও হত্যা বিষয়ে ফেসবুকে লিখিত ব্যক্তিগত মতসমূহ

৩১ অক্টোবর,২০১৫ ঢাকায় লেখক-প্রকাশকদের উপর হামলায় তিনজন মারাত্মকভাবে আহত হয় ও ফয়সার আরেফিন দীপন মারা যায়। এ বিষয়ে আমি ফেসবুকে যে মন্তব্য করি তা নিচে তুলে ধরলাম। মন্তব্য-১ তারিখ: ৩১ অক্টোবর, ২০১৫ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হকের ছেলে জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আরেফিন দীপন খুন হয়েছেন। তার আগে লালমাটিয়া/মোহাম্মদপুরে শুদ্ধস্বর প্রকাশনার স্বত্বাধিকারী আহমেদুর রশিদ টুটুলসহ লেখক রণদীপম বসু ও কবি তারেক রহিমকে গুলি করে ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। তাদের আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। একইদিনে পরপর ... বিস্তারিত পড়ুন →

অস্ত্রগুরু বুড়ো ওস্তাদকে স্মরণঃ তার জীবন যেন ইতিহাস বইয়ের একটি পাতা

পার্বত্য চট্টগ্রামের জনগণ একদা এক সুমহান স্বপ্ন পূরণের জন্য, অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে সশস্ত্র সংগ্রাম করেছিল। সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করা ঠিক ছিলো বা বেঠিক ছিলো তা নিয়ে নানা তাত্ত্বিক আলোচনা পর্যালোচনা হলেও হতে পারে। কিন্তু রাজনৈতিক নেতৃত্বের ডাকে যে সকল যুব-ছাত্র-পরিণত বয়সের সাধারণ অগণিত জনতা সেই সশস্ত্র সংগ্রামের অগ্রযাত্রার পথিক হয়েছিল তারা তো এক আশার জন্য, এক নতুন দিনের স্বপ্ন পূরণের জন্যই সেখানে সশস্ত্র লড়াইয়ে যোগ দিয়েছিল। নলিনী রঞ্জন চাকমাও ঠিক সেই মহান সুমহান আশা নিয়েই যোগ দিয়েছিলেন শান্তিবাহিনীতে। বাংলাদেশ সরকার এই সশস্ত্র সংগ্রামকে বিচ্ছিন্নতাবাদের আন্দোলন, ... বিস্তারিত পড়ুন →

নির্যাতনের সমাজ মনস্তত্ত্ব

তারিখঃ ০৬ আগস্ট, ২০১৫ ইদানীঙকালে শিশু-কিশোর ও নারীর উপর নির্যাতন যেন বেড়ে গেছে, অন্তত পত্র-পত্রিকা-মিডিয়ার খবর পড়ে তা-ই মনে হয়। আমার কাছে মনে হয়েছে, দুর্বলের উপর নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার একটি সমাজ মনস্তত্ত্ব রয়েছে। এর শেকড় রাজনীতিতে। অন্তত বর্ত্তমান ‘শক্তিমত্তা বলমত্ততা’ প্রদর্শনের রাজনীতিতে তার শেকড় নিহিত বলেই বোধে জাগে। দেশে দুই পুঁজিপন্থী দলসমূহ ক্ষমতা দখলের, দেশ ও দশের সম্পদ লুটপাটের যে ধারা চালু রেখেছে ও এখন তাতে যেভাবে একটিমাত্র দলীয় বৃত্তভুক্তরা স্বমহীমায় আবির্ভূত হয়ে একইসাথে বিরোধীভুক্তদের নির্বংশ নাশ করছে ও নিজেদের বাহুবলী বজরঙ্গী বুজরুকী ... বিস্তারিত পড়ুন →

রাজনীতির চিদে মরে জুগঅ ধক কামাড়েই থাই!

রাজনীতির চিদে মরে জুগঅ ধক কামাড়ে থাই! রাজনীতির চিদে, হিলঅর চিদে মরে জুগঅ ধক কামাড়েই থাই! চিদে গুরিবার ন চ্যালেও চিদেআনি সুমি থাই, চিদঅত ফুদে দি জাই! কধা এলঅ একবজর সঙ এজেত্তে নভেম্বর,২০১৫ সঙ ফেসবুকঅত রাজনীতির লেঘালেঘি ন গুরিম! হালিক এগ্গান মন্তব্য হুব গুরিবার পরানে কঅর! সিআন অহলঅদে- আমা রাজনীতির ঘরআনঅত ভ্যান্টিলেটর বা ভাব জেবার নল/কানা/ফাইপ নেই! নেই কিনে বানা পজা বাচ বাইর অহয়, বিশেচগুরি ফেসবুকঅত! বেগঅর মনঅত থেবঅ, হাগারাসুরিত বেচ হিজুদিন আগে টয়লেট-অ গাদ-অত পুরিনেই পোল্লেম ৩ জন, তারপরে ২ জন গুরি মোট ৫ জন মানুচ মুজ্জোন। কেউ কি তোলেই চিওন এঞ্জান ঘদনা হিত্তেই উইয়ে? টয়লেট-অ গাত বানাদেও ... বিস্তারিত পড়ুন →

লিখে রেখো সাজেক একফোঁটা দিলেম শিশির!

সাজেক বা গঙ্গারাম এলাকা থেকে চলে এসেছি তিন মাসের অধিক হয়ে গেল। সেখানে থাকার সময় যে কাজটি করে সবচেয়ে বেশি মানসিক শান্তি পেয়েছি তা হলো, গঙ্গারাম-কাজালঙ নদীতে ১২ হাজারের মতো বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা ছেড়ে দেয়ার কাজটি করে। ইউপিডিএফ সাজেক ইউনিটের পক্ষ থেকে মাছের পোনা ছেড়ে দেয়ার কাজটি করা হয়। দেখুন cht24.com লিঙ্ক মাছের ছোট্টো ছোট্টো পোনাগুলো যখন মুক্তি পেয়ে হঠাৎ ছোট্টো নদীর স্রোতের মধ্যে উধাও হয়ে হারিয়ে গিয়েছিল, তখন মনের যে স্বস্তি ও শান্তি লাভ করেছিলাম তা আজও আমাকে তৃপ্ত করে, স্বস্তি দেয়, আমি আনন্দলাভ করি, পুলকবোধ করি! না, কোনো রকমের ধর্মীয় বোধ থেকে এইপুলকলাভ, শান্তি বা স্বস্তি ... বিস্তারিত পড়ুন →

জ্ঞানী বুদ্ধের শিক্ষা-আচার সর্বস্ব কঠোর সাধনা নয়, নীতি নৈতিকতাপূর্ণ জীবন যাপনই প্রধান

ধ্যানী জ্ঞানী বুদ্ধ একসময় উজুন্যা বা উজুনজার কন্নকথল হরিণচারণ বনে অবস্থান করছিলেন। তাঁর সাথে দেখা করতে আসলেন নির্গন্থ তথা নগ্ন এক সন্যাসী। সন্যাসী ধ্যানী জ্ঞানী বুদ্ধকে প্রশ্ন করলেন, ভদন্ত গৌতম! আমি শুনেছি আপনি কঠোর তপস্যার নিন্দাবাদ করেন, তাদের তিরস্কার করেনম অপবাদ দেন। তাদের কথা কি ঠিক নাকি বেঠিক? জ্ঞানী বুদ্ধ সানন্দে সমালোচনা গ্রহণ করতেন তখন বুদ্ধ সমালোচনাপূর্ণ বক্তব্য সানন্দে গ্রহণ করে বললেন, এ কথাটি সত্য নয়। তিনি বললেন, প্রজ্ঞাপূর্ণ চোখে এটা দেখা যায়, কোনো কোনো কঠোর সাধনাকারী মরণের পরে দুর্গতিপ্রাপ্ত হয়েছেন। আর কোনো কোনো কঠোর সাধানাকারী তপস্বী মরণের পরে ... বিস্তারিত পড়ুন →

জন স্টুয়ার্ট মিল

জন স্টুয়ার্ট মিল(১৮০৬-১৮৭৩) একজন দার্শনিক, রাজনীতিক এবং সর্বোপরি বলা হয়ে থাকে ঊনিশ শতকের সবচেয়ে প্রভাবশালী ইংরেজীভাষী দার্শনিক। তিনি দর্শন, জ্ঞানতত্ত্ব, অর্থনীতি, সমাজ ও রাজনীতি, নৈতিকতা, ধর্ম, নারী অধিকার ইত্যাদি বিষয়ে লেখা লিখেছেন। তার গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের মধ্যে A System of Logic, On Liberty, and Utilitarianism উল্লেখযোগ্য। জন স্টুয়ার্ট মিলের পিতার নাম জেমস মিল(James Mill)। তিনি একজন স্কটিশ। জন বিয়ে করেন হেরিয়েট বারো(Harriet Barrow) নামে একজনকে। জেমস মিল History of British India(1818) নামে একটি বই লেখেন। তিনি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীতে চীফ এক্সামাইনার হিসেবে চাকুরি করেন। জেমস মিল ১৮০৮ সালের দিকে জেরেমি বেন্থামের সাথে পরিচিত হলে ... বিস্তারিত পড়ুন →

মিঠুন চাকমা’র দু’চার কথা!

জীবন দর্শনের পাঁচালী-০১ মুখ্য এই জীবনটাই! জীবনটাই চলমান বা চলমানতাই জীবন! সুতরাং সময়ও চলমান! বাস্তবতাও চলমান! বস্তু ও বাস্তবতাও চলমান, পরিবর্তমান, ঘটমান! কিন্তু জীবেনর পরিপ্রেক্ষিতে এই প্রক্রিয়াটাই মুখ্য যার উপর সবকিছু নির্ভর করে!  এই্ প্রক্রিয়াকে আমরা পদ্ধতি, পন্থা, পাথেয়, কৌশল, পরিকল্পনা ইত্যাদি যা-ই বলি না কেন। কিন্তু সেই ‘প্রক্রিয়া’ গঠনমূলক না ধ্বংসাত্মক না কি যান্ত্রিক না কি ভাবমূলক আত্মকেন্দ্রিক অথবা বস্তু বাস্তবতার সাথে সম্পর্কযুক্ত বা সম্পর্কহীন বা যথাযথ যুগোপগোগী তার উপরই এই জীবনের গাঠনিকতা দাঁড়িয়ে। জীবনের বাস্তবতাই বলে দেয় বাস্তবতার সাথে বস্তুর প্রতিঘাতে ... বিস্তারিত পড়ুন →